1. Borhanuddinofficial6@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  2. admin@iqbalahmed.info : Iqbalahmed :
বঙ্গবন্ধু ও তার সুযোগ্য তনয়া শেখ হাসিনার প্রতি বিদেশী এবং প্রবাসীদের শ্রদ্ধা আর স্বদেশ প্রেম।
বঙ্গবন্ধু ও তার সুযোগ্য তনয়া শেখ হাসিনার প্রতি বিদেশী এবং প্রবাসীদের শ্রদ্ধা আর স্বদেশ প্রেম।

ইকবাল আহমেদ লিটন: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু হচ্ছেন পশ্চিম দিগন্তের লাল সূর্যের জোৎসনা রাতের চাঁদ আর যারা তার বিরোধীতা করছেন তারা হচ্ছে আমাবস্যা অন্ধকারের ঝোপঝারের ঝিঝি পোকা কিম্ভবুদ্ধিমতা কুৎসিত পদাতিক প্যাঁচা স্ব শত্রু বিপ্লবের সুযোগ সন্ধানীর ধান্দাবাজ। বাংলাদেশের প্রতি কতটুকু ভালবাসা আছে প্রবাসী বাঙালিদের তাদের হৃদয়ের মাঝে, সেটা দেখার এবং বোঝার ক্ষমতা আমাদের নেই। শুধু এইটুকুই জানি এবং বুঝি বাংলাদেশের সকল বাঙালি মানুষের মায়ের মতো। তাকে আমরা মায়ের মতই সম্মান ও শ্রদ্ধাভক্তি সহ অন্তরের অন্তস্থল থেকে জানাই সর্বদা সবসময়।

সত্যিই আমরা এক একজন গর্বীত বীর বাঙালি এবং বাংলাদেশী, আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আমরা বাংলাদেশে জন্মগ্রহণ করেছি বলে নিজেকে ধন্য ও গর্বীত মনে করি সদা সর্বদা। আমরা বিশ্বের সকল মানুষের কাছে মাথা উঁচু করে বলতে পারি আমরা এক একজন গর্বীত বাঙালি ও বাংলাদেশি। আমার দেশ স্বাধীন দেশ। রক্ত দিয়ে কিনেছি এই স্বাধীনতা কোনও কিছুর বিনিময়ে বা করুনায় নয়, রক্ত দিয়ে কিনেছি এই বাংলা। ৩০ লক্ষ শহীদ ও ২ লক্ষ মা বোনদের ইজ্জতের বিনিময়ে পেয়েছি এই মহান স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধুর মত একজন মহান নেতার নেতৃত্বে পেয়েছি, পেয়েছি ভৌগলিক মানচিত্রে লাল সবুজের পতাকা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ।

বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, “আমার দেশ স্বাধীন দেশ। ভারত হোক, আমেরিকা হোক, রাশিয়া হোক, গ্রেট ব্রিটেন হোক কারো এমন শক্তি নাই যে, আমি যতক্ষণ বেঁচে আছি ততক্ষণ আমার দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে পারে”। বঙ্গবন্ধুর মত একজন মহান ব্যাক্তিত্ব পেয়েছি বলে, আজ আমরা বিশ্বের বুকে সকল মানুষের সামনে বুক ফুলিয়ে বলতে পারি আমারা বাঙালি, বাংলা আমার ভাষা, বাংলা’ই আশা, আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি এই কথাও বলেছিলেন, এ প্রধানমন্ত্রীত্ব আমার কাছে কাঁটা বলে মনে হয়। আমি যদি বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে না পারি, আমি যদি দেখি বাংলার মানুষ দু:খী, আর যদি দেখি বাংলার মানুষ পেট ভরে খায় নাই, তাহলে আমি শান্তিতে মরতে পারবো না। বিদেশীরা আজও বাংলাদেশের কথা শোনার সাথে সাথে বঙ্গবন্ধুর কথা স্বরণ করে বলে, তোরা বঙ্গবন্ধুর দেশের লোক। বঙ্গবন্ধুর প্রতি তাদের যে মায়া, মমতা ও ভালবাসা সহ শ্রদ্ধা আজও বিদ্যমান। কে বলে বাংলাদেশের মানুষকে বিশ্বাস করে না? আমি বলি, এখনো বাংলাদেশীদের বিশ্বের মানুষ বিশ্বাস করে এবং ভালবাসে বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশকে।

যাইহোক, আমি বর্তমান আয়ারল্যান্ড আওয়ামী লীগের সদস্য সচিব ও সাবেক ছাত্রলীগ কর্মী। একজন বাঙালি মায়ের সন্তান যখন বিদেশীদের সঙ্গে কথা বলি ও কুশল বিনিময় করি তখন বিদেশীরা বলেন বাংলাদেশের বর্তমান সরকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গকন্যা দেশরত্ন বিশ্বনেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পিতা বঙ্গবন্ধুর ধারাবাহিকতাই তারই সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশকে পৃথিবীর বুকে এক উন্নয়নের রোল মডেল হিসাবে তুলে ধরেছেন এবং বিশ্বের বুকে সুনাম অর্জন করেছে যা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। তাই বঙ্গবন্ধুর একটা উক্তি মনে পরে যায়, মানুষকে ভালোবাসলে মানুষও ভালোবাসে। যদি সামান্য ত্যাগ স্বীকার করেন, তবে জনসাধারণ আপনার জন্য জীবন দিতেও পারে। বঙ্গবন্ধু নামের ঐ মহান নেতাই সৃষ্টি করেছিল বাংলাদেশ নামের একটি রাষ্ট্র। আল্লাহ যেনো বঙ্গবন্ধুকে জান্নাত দান করেন আমিন।

#আয়ারল্যান্ড সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আমি সবার সাথেই কমবেশি কথা বলে বুঝতে পেরেছি বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনার বীরত্ব গাঁথা সম্মানসূচক কথা যা আমার হৃদয়কে নাড়িয়ে দিয়েছে, যেমন: যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র সহ প্রায় সমগ্র ইউরোপ কান্ট্রী

১. #ইংল্যান্ডের_ব্রিটিশ, ২. #আয়ারল্যান্ডের_আইরিশ ৩. #জার্মানের_জার্মানী মানুষ ইত্যাদি। #মধ্য প্রাচ্চ্য: ১. ডুবাইয়ের আরবী মানুষ, ২. বাহরাইনের আরবী মানুষ, ৩. সুদানের মানুষ, ৪. লেবাননের মানুষ, ৫. মিশরের মানুষ, ৬. ইরানের মানুষ ইত্যাদি। এশিয়ার মহাদেশ: ১.ইন্ডিয়ান মানুষ, ২.শ্রীল্কান মানুষ, ৩.চাইনীজ মানুষ এবং
বাংলাদেশের মানুষ তাদের সবার কাছে আমাদের দেশের কথা তুলে ধরা হয়েছে। আমার যতটুকু সম্ভব চেষ্টা করেছি পৃথিবীর সকল মানুষের কাছে আমাদের বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশের ইতিহাস তুলে ধরার জন্য। বঙ্গবন্ধুর জিবনী সম্পর্কে তাদের কাছে তুলে ধরলাম। তাদের মধ্যে অনেকেই বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস সম্পর্কে জানেন। সবাই আনন্দে আনন্দিত হয়েছে এই জন্যই যে, বঙ্গবন্ধুর নাম শুনে আমাকে অনেকেই অভিনন্দন জানালো। আমি সকলের সামনে বললাম, পাকিস্তান এবং আমেরিকান প্রসাশনের কাছ থেকে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি এই জন্যই আমরা স্বাধীন ও গর্বীত বাঙালি। বঙ্গবন্ধু আমাদের জাতির জনক। আর বেদনা এই জন্যই যে, যাদের আত্মত্যাগে আজ এই স্বাধীনতা আমরা পেয়েছি বা পেলাম তারা আজ আমাদের মাঝে নেই। আল্লাহ যেন সকল শহীদদেরকে জান্নাত দান করেন আমিন।

তাদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত এই স্বাধীনতা আমরা ভোগ করতেছি। কিন্তু তাদের জন্য আমরা কিছুই করতে পারছিনা। তাদেরকে দেওয়ার মত আমার কিছুই নেই, আছে শুধু শ্রদ্ধা ভক্তি ও ভালবাসা। তাই সেই ভালবাসার টানে নিজের মনের ভিতরে জমিয়ে রাখা ভালবাসাটুকু বহিঃপ্রকাশ করলাম মাত্র বিদেশীদের কাছে। আমি যখন এই সব ইতিহাস তুলে ধরি, তারা সবাই পাকিস্তান নামক ঐ রাষ্ট্রকে আমার সামনে ঘৃনার চোখে দেখে যেমন তারা বলে #ব্লাডি_পাকি তখন আমি আনন্দে আনন্দিত হয় ,জয় বাংলা।
আর আমাদের নিজেদের দেশের এক গোষ্ঠী এখনো এই স্বাধীনতার মর্মটা বুঝতে পারে নাই, বলে স্বাধীনতার বিপক্ষের অপশক্তির কাছে যারা কখনোই স্বাধীনতা চাননি এবং রাজাকারদের পক্ষে কথা বলে যখন শুনি তখন দুঃখ প্রকাশ করি এবং প্রচন্ড পরিমানে কষ্ট ও রাগ হয়।
আল্লাহ যেনো তাদের শুভ-বুদ্ধির উদয় ঘটাক ও নিজের দেশের এই স্বাধীনতা সম্পর্কে বোঝার শক্তি দান করেন, আমিন । আর আমি ধিক্কার জানাই পাকহানাদার বাহিনীকে যারা আমার দেশে নির্মম হত্যাযজ্ঞ সহ আরো অনেক কর্মকান্ড চালিয়েছিল তাদেরকে। আর আমরা ঘৃণা করি ঐ রাজাকার, আলবদর, আলশামস এবং জামাতি মানুষ নামের অমানুষ যারা বাঙ্গালী হয়েও পাক হানাদার বাহিনীর পক্ষ হয়ে বাঙালি মা বোনদের ইজ্জত নিয়েছিল এবং হত্যা করেছিল বাঙালি বীর সন্তানদের। আমি যখন বিদেশী মানুষের কাছে বাংলার এই ইতিহাস তুলে ধরি অনেকের চোখের জল টলমল করে। বিদেশীদের মধ্যে অনেকেই বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস সম্পর্কে জানেন।
তারা বলে বঙ্গবন্ধুর মত এইরকম আরেকজন নেতার জন্ম বাংলাদেশ সহ বিশ্বে আর হবে না, যে নেতাকে তোমরা হারিয়েছো। এটাইতো আমার গর্ব, এর চেয়ে বড় গৌরব আর কিসের হতে পারে? কথায় কথা আসে –জেমসলামন্ড, ইংলিশ এম পি বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডে বাঙলাদেশই শুধু এতিম হয়’নি বিশ্ববাসী হারিয়েছে একজন মহান সন্তানকে। দুটি শব্দের মধ্য দিয়ে বাঙালী জাতি বিশ্বের কাছে পরিচিত লাভ করেছে এই দুটি শব্দ দিয়েই এই বাংলাদেশের জন্ম হয়েছে “#জয়_বাংলা” আমি তিক্ত ভাষায় বলতে চাই, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন বিশ্বনেত্রী বিদ্যানন্দিনী শান্তি কন্যার দক্ষতা ও বিচক্ষণতার মধ্যে গত_২৩_বছরে অপশক্তির, বেগম জিয়ার দুর্নীতির হাওয়া ভবন থেকে ক্যানসার রোগাক্রান্ত বাংলাদেশকে তিনি পৃথিবীর বুকে জাগিয়ে তুলেছেন তাই বাংলাদেশ সঠিক পথে ও সঠিক দিক নির্দেশনায় এগিয়ে যাচ্ছে মাথা উঁচু করে বঙ্গকন্যার হাত ধরে। যেমন ৭১ এই পৃথিবীকে অবাক করে দিয়েছিল জাতির পিতার সন্তানেরা। সারা বিশ্ব সেদিন তাকিয়েছিল এবং জ্বলে পুড়ে মরে ছারখার তবুও বিশ্বের বুকে বাঙালি জাতি মাথা নত করে নাই কারন আমরা জাতির-পিতার অনুসারী আমাদের সাহস আমাদের একাত্তর। কিছু সত্যকথা আমাদের বলতেই হবে কারন পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ আদালত মানুষের বিবেক। ২৩ বছরের অপশক্তি আমার পিতা-মাতা, দাদা-দাদি বয়স্ক মানুষদেরকেও বেগম জিয়া নাস্তিক বলে আক্ষা দিয়েছেন। আমি ধিক্কার ও নিন্দা জানাই আপনাকে বাঙালি জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে হবে, এই বাংলাদেশ হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ খৃষ্টান সকলের দেশ এককথায় ধর্ম নিরপেক্ষ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, আর সাম্প্রদায়িকতা যেন মাথাচারা দিয়ে উঠতে না পারে। ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্র বাংলাদেশ। মুসলমান তার ধর্মকর্ম করবে। হিন্দু তার ধর্মকর্ম করবে। বৌদ্ধ তার ধর্মকর্ম করবে। কেউ কাউকে বাধা দিতে পারবে না। কিন্তু ইসলামের নামে আর বাংলাদেশের মানুষকে লুট করে খেতে দেওয়া হবে না। কেননা আমরা প্রথমত মানুষ তারপরে মুসলিম তারপরে মনে-প্রানে বাঙালি, ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার। পরিশেষে বলতে চাই, আমরা লেখাপড়া করেছি পরিচালিত শুদ্ধ ও আলোকিত মানুষ হবার জন্য কারো চরিত্র হনন কিংবা কাউকে নিঁচু বা হেয় করে বা ইতিহাসকে বিকৃত করে ফায়দা লোটার জন্যে নয় তাই সাধু সাবধান!

লেখক: সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, সদস্য সচিব আয়ারল্যান্ড আওয়ামী লীগ, ইকবাল আহমেদ লিটন